Wednesday , December 2 2020
Breaking News
Home / News / এবার প্রকাশ্যে, কিভাবে এসআই আকবরকে সুযোগ করে দেয়া হয়েছে পালানোর

এবার প্রকাশ্যে, কিভাবে এসআই আকবরকে সুযোগ করে দেয়া হয়েছে পালানোর

সিলেটের বন্দরবাজার পু’লিশ ফাঁড়ির এসআই আকবর। সিনেমা’র নায়কের মত চেহারা দেখতে হলেও তিনিই এখন হয়ে গেছেন দেশের সব থেকে বড় ভিলেইন। তার জঘন্য একটি কাজের কারনে তিনি এখন হয়ে গেছেন সারা দেশের মানুষের কাছে সমালোচনার পাত্র।

বর্তমানে তিনি রয়েছেন পলাতক।১২ অক্টোবর উপপরিদর্শক (এসআই) আকবরসহ ওই ফাঁড়ির চার পু’লিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত এবং তিনজনকে প্রত্যাহার করা হয়। এরপর থেকেই লাপাত্তা এসআই আকবর। তার মোবাইল ফোন নম্বরটিও বন্ধ রয়েছে। বাকি ৬ জনকে সিলেট মেট্রোপলিটন পু’লিশ লাইন্সে রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

এদিকে, আকবর কিভাবে লাপাত্তা হলেন- এ বিষয়ে সিলেট মেট্রোপলিটন পু’লিশের কোনো কর্মক’র্তার সুনির্দিষ্ট মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

তবে তার খোঁজে সম্ভাব্য কয়েকটি স্থানে অ’ভিযান চালানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন নগর পু’লিশের উপ-কমিশনার (মিডিয়া অ্যান্ড কমিউনিটি সার্ভিস) বিএম আশরাফ উল্যাহ তাহের।

এ বিষয়ে সিলেট মেট্রোপলিটন পু’লিশ কমিশনার গো’লাম কিবরিয়া ওই পু’লিশ সদস্যের পালিয়ে থাকার কথা স্বীকার করেছেন। এছাড়া আকবর বাদে অ’ভিযু’ক্ত বাকি পু’লিশ সদস্যদের পু’লিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) কাছে হস্তান্তরে তারা প্রস্তুত রয়েছেন বলেও জানান তিনি।

গো’লাম কিবরিয়া বলেন, ’আকবর ছাড়া বাকিরা আমাদের হাতে রয়েছে। পিবিআই যখনই তাদের চাইবে, তখই অফিসিয়ালি হস্তান্তর করবো। যে একজন পলাতক, তাকে ধ’রার চেষ্টা চলছে। পিবিআইও ধ’রার চেষ্টা করবে। সে যেন পালাতে না পারে, এজন্য সবকটি ইমিগ্রেশনেও চিঠি দেওয়া আছে।’

এদিকে, আকবর হোসেনের লাপাত্তার ঘটনায় বিভিন্ন জন বিভিন্ন কথা বলছেন। কেউ বলছেন, তিনি পু’লিশের হাতের মুঠোয় রয়েছেন। আবার পু’লিশের কর্মক’র্তারা বলছেন, তাকে ধরতে সম্ভাব্য স্থানে অ’ভিযান চালানো হচ্ছে।

গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র দেবাশীষ দেবু বলেন, ’বলা হচ্ছে এসআই আকবর পালিয়ে গেছে। সে কী’ভাবে পালায়? সে বন্দর বাজার ফাঁড়ির দায়িত্বে ছিলেন। রায়হানের মৃ’/ত্যু’/র’/ ঘটনায় তাকে বরখাস্ত করেই পালানোর সুযোগ করে দেওয়া হয়েছে।

সংস্কৃতিকর্মী ও সাংবাদিক রাজিব রাসেল বলেন, ’স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, বিচার বিভাগকে এ বিষয়টি দেখা উচিত। কী’ভাবে একজন অ’ভিযু’ক্ত ব্যক্তি মা’মলার পরেও পু’লিশের হেফাজত থেকে পালিয়ে যায়?’।

নারী নেত্রী ও সংস্কৃতিকর্মী ইন্দ্রানী সেন শম্পা বলেন, ’পু’লিশের নিরাপত্তা বলয় থেকে একজন পু’লিশ কর্মক’র্তা কী’ভাবে পালিয়ে যায়, যে কিনা রায়হান হ’/ত্যা’/য়’/ অ’ভিযু’ক্ত। পু’লিশ এর দায় এড়াতে পারে না।’

সিলেট জে’লা আইনজীবী সমিতির সদস্য অ্যাডভোকেট দেবব্রত চৌধুরী লিটন বলেন, ’সাময়িক বহিষ্কারের পর পু’লিশের উচিত ছিল আকবরসহ সবাইকে নজরদারিতে রাখা। কিন্তু অন্য ৬ জনকে রাখলেও আকবর সেখান থেকে পালালো কী’ভাবে?

রায়হানের মা সালমা বেগম বলেন, ’আমা’র ছে’লে কোনো অ’প’রাধী ছিল না। তাকে মাত্র ১০ হাজার টাকার জন্য নি’/র্যা’/ত’/ন’/ ’/করে মে’/রে’/ছে। কিন্তু এক সপ্তাহ হয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত অ’ভিযু’ক্ত কোনো পু’লিশ সদস্যকে গ্রে’প্তার করা হয়নি। আমি হ’/ত্যা’/র’/ বিচার চাই। পু’লিশ পারে না এমন কোনো কাজ নেই। তাই পালিয়ে যাওয়া আকবরকেও খুঁজে বের করতে অনুরোধ জানাই।’

এ দিকে রায়হানের এই ঘটনায় এখনো উত্তাল পুরো সিলেট। বিশেষ করে এই ঘটনার মুল হোতা আকবরকে গ্রে’ফতারের জন্য তোলপাড় চলছে সারা দেশে। বিশেষ করে পু’লিশ এটা ভেবেই হয়রান হয়ে যাচ্ছে কি ভাবে আকবর হয়ে গেলেন লাপাত্তা। এ দিকে জানা গেছে বরখাস্ত এসআই আকবরকে দেখা মাত্রই করা হবে গ্রে’ফতার।

About noman munshi

Check Also

ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কে আ*গু*ন জ্বালিয়ে অবরোধ

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার বালুয়াকান্দি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল আমিন প্রধান ও তার ছোটভাই …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *